বাংলাদেশ অনলাইন নিউজ পোর্টাল এসোসিয়েশন এ তালিকাভুক্ত আইডি নং – ৪২৯ ............................ দেশ ও জাতীর কল্যাণে সংবাদ ও সাংবাদিকতা!! আপনি কি সাংবাদিক হয়ে দেশ ও জাতীর কল্যাণে কাজ করতে চান তা হলে যোগাযোগ করুন ০১৭২৬৩০৪০৯২
প্রচ্ছদ

ইসলামপুরে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বাড়ি ঘরে দুবৃর্ত্তদের হামলা আহত-৪

ইয়ামিন মিয়া,ডেস্ক ‍নিউজ:
পারিবারিক কলহের জেড় ধরে ধর্মীয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও বাড়ি ঘরে স্বশস্ত্র হামলা করেছে স্থানীয় দুর্বৃত্তরা। হামলাকারীরা স্থানীয় ধর্মীয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের টিনের বেড়া, বাউন্ডারী, শ্রেণিকক্ষ, দরজা, জানলা ও শিক্ষকের বাড়ি ঘর ভাঙ্গচুর করেছে। এই ঘটনায় কমপক্ষে ৪জন আহত হয়েছেন। গুরুতর আহতদের জামালপুর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে, বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।
শনিবার রাতে, উপজেলার চরপুটিমারি ইউনিয়নের চতলাপাড়া গ্রামের “চতলাপাড়া কছিমুন্নেছা কিন্ডার গার্টেন এ্যান্ড নুরানী হাফিজিয়া মাদ্রাসা”য় এই হামলার ঘটনা ঘটেছে।
সরেজমিন গেলে ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শিরা জানান, ঘটনার সকালে চতলাপাড়া কছিমুন্নেছা কিন্ডার গার্টেন এ্যান্ড নুরানী হাফিজিয়া মাদ্রাসার সভাপতি মোহাম্মদ আলীদের সাথে প্রতিবেশিদের পারিবারিক কলহের সৃষ্টি। দিনের কলহ নিষ্পত্তির লক্ষ্যে রাতে দুইপক্ষের মুরুব্বীদের নিয়ে বৈঠক বসে। বৈঠকে উভয়পক্ষ আপোষের সিদ্ধান্তে পৌছে। কিন্তু হামলাকারীদের একজনের উস্কানিতে সমঝোতার বৈঠক প- হয়ে যায়। এক পর্যায়ে একদল লোক প্রথমে মাদ্রাসায় স্বশস্ত্র হামলা করে ভাঙ্গচুর ও পরে শিক্ষককের বসতবাড়িতে হামলা করে। এ হামলায় আশরাফুল ইসলাম (১৮) পিতা মোহাম্মদ আলী, মোন্নাফ আলী (৩৫)পিতা জইম উদ্দিন, আহম্মদ আলী (৫৫), মোহাম্মদ আলী (৬০) উভয় পিতা ফইম উদ্দিন আহত হন। এদের মধ্যে গুরুতর আহতদের জামালপুর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
এব্যাপারে “চতলাপাড়া কছিমুন্নেছা কিন্ডার গার্টেন এ্যান্ড নুরানী হাফিজিয়া মাদ্রাসার সভাপতির ছেলে, পরিচালক ও প্রধান শিক্ষক হাফেজ মাওলানা ছামিদুল ইসলাম বলেন, আমি একজন ধর্মীয় শিক্ষক। আমার বা আমার প্রতিষ্ঠানের সাথে কারও বিরোধ ছিল নেই। আমি এলাকার ছেলে মেয়েদের আধুনিক ধর্মীয় শিক্ষায় শিক্ষিত করে গড়ে তোলার লক্ষ্যে বহু কষ্টে এই মাদ্রাসাটি করেছিলাম। সেদিনের তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে দুর্বৃত্তরা রাতের আধারে এসে এলাকার এই ধর্মীয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি কুপিয়ে ভেঙ্গে চুরমার করে দিয়ে গেছে। এতে করে আমার কয়েক লাখ টাকার ক্ষতি সাধিত হয়েছে।
ওই ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য শুকুর মাহমুদ বলেন, পারিবারিক কলহের জেড় ধরে যারা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে স্বশস্ত্র হামলা করেছে তারা নিঃসন্দেহে গর্হিত কাজ করেছেন। এটা ক্ষমার যোগ্য নয় অপরাধ।
এলাকাবাসি ও শিক্ষার্থী অভিভাবক নজরুল ইসলাম, জয়নাল, আঃ মান্নানসহ আরও অনেকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে হামলা করার মতো ন্যাক্কারজন ঘটনাটির নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। তারা জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেছেন।
এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত মামলার প্রক্রিয়া চলছে।






Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked as *

*