বাংলাদেশ অনলাইন নিউজ পোর্টাল এসোসিয়েশন এ তালিকাভুক্ত আইডি নং – ৪২৯ ............................ দেশ ও জাতীর কল্যাণে সংবাদ ও সাংবাদিকতা!! আপনি কি সাংবাদিক হয়ে দেশ ও জাতীর কল্যাণে কাজ করতে চান তা হলে যোগাযোগ করুন ০১৭২৬৩০৪০৯২
প্রচ্ছদ

মাদারগঞ্জে রায়হান রহমতুল্যাহ রিমুকে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হিসাবে দেখতে চায় তৃণমূল

আব্দুল্লাহ আল লোমান,নিউজ ডেস্ক:এক জন সফল সংগঠক হিসেবে নিজেকে তুলে ধরে সব শ্রেণি পেশার মানুষের কাছে প্রানের নেতা হওয়া যায়, সেটি দেখিয়ে তরুণ প্রজন্মের কাছে কিভাবে জনপ্রিয় হওয়া যায় সেটাও দেখিয়ে প্রমাণ করেছেন জামালপুরে মাদারগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রায়হান রহমতুল্যাহ রিমু।

গত বুধবার সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, জামালপুরের মাদরগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীগ ও প্রতিটি ইউনিয়ন আওয়ামীলীগকে চরম শক্তিশালী করতে, বঙ্গবন্ধুর এই সৈনিক নিরালস ভাবে কাজ করে যাচ্ছেন।তিনি ১৯৮৭সালে রাজনৈতিক জিবনে পা রেখে উপজেলা ছাত্রলীগের বিভিন্ন পদে দায়ীত্ব পালন করেন।

১৯৯৪-৯৭ সালে উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক ও ১৯৯৭-৯৯ সালে উপজেলা ছাত্রলীগের আহবায়ক,২০০০-০২ সালে সেচ্ছাসেবক লীগের আহবায়ক,২০০৪- ১৪ সাল পর্যন্ত উপজেলা আওয়ামী যুবলীগের সাধারন সম্পাদকের দায়ীত্ব পালন করেন।২০১৫ সাল থেকে অদ্যবধি পর্যন্ত উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদকের দায়ীত্ব পালন করে আসছেন।

সদ্য হয়ে যাওয়া জাতীয় সংসদ নির্বাচনে উপজেলা জুড়েই ছিল তাঁর অন্যতম ভূমিকা। তার রাজনৈতিক কর্মকান্ড এবং দলের জন্য তার ত্যাগের কারণে তৃনমূলের নেতাকর্মীরা ব্যাপকভাবে দাবি তুলেছেন তরুণ প্রজন্মের আস্থাভাজন রায়হান রহমতুল্যাহ রিমু কে মাদারগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হিসেবে পেতে চায়।

এব্যাপারে রায়হান রহমতুল্যাহ রিমু’র প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে তিনি জানান সবার একটা স্বপ্ন থাকে উপরে উঠার। আমি মনোনায়ন চাইব দল যদি আমাকে দেন তাহলে উপজেলাটি সাংসদকে উপহার দিব ইনশায়াল্লাহ।বিগত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আমি প্রার্থী ছিলাম, জেলা আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীরা বলেছিলেন, আপনাকে আগামী উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে মনোনয়ন দিবো।তাই সেই সিদ্ধান্তেই আমি নির্বাচনে যায়নি।এই নির্বাচনে তাই আমি খুব আশাবাদী।

আপনাকে এ নির্বাচনেও দল যদি মনোনায়ন না দেয় সে ক্ষেত্রে কি করবেন? জানতে চাইলে তিনি বলেন এখন পর্যন্ত দলের সিদ্ধান্তের বাহিরে যায়নি এবং যত দিন বেচে থাকব দলের বাহিরে যাবনা। মনোনায়ন না পেলে যাকে দেয়া হবে তাঁর হয়েই কাজ করবো।

তবে আমার বিশ্বাস বিগত দিনে দলের সিদ্ধান্তের বাহিরে কোন দিন গিয়ে বিদ্রোহ করিনি এজন্য আমি মনোনায়নের ব্যাপারে আশাবাদি এবং পেলে বিজয়ের ব্যাপারেও আমি শতভাগ আশাবাদি । আ”লীগ বৃহত্তর সংগঠন,অনেক যোগ্যতা সম্পন্ন নেতা আছেন, অনেকেই মনোনায়ন চাইতেই পারেন।

মাদরগঞ্জ উপজেলা শ্রমিকলীগের নেতা মন্টু মিয়া বলেন, দুর্দিনে দলের পাশে থেকে সংগঠনকে শক্তিশালী করেছে এই নেতা। স্বচ্ছাধারার রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ততার জন্য তার উপজেলা চেয়ারম্যান হিসেবে মনোনয়ন পাওয়া উচিৎ।

চরজোডখালী ইউনিয়নের ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি সোহরাব হোসেন বলেন, তিনি সব সময় সাধারণ মানুষের পাশে থাকেন। বিশেষ করে তরুণরা তাকে খুব ভালবাসে, একজন সৎ মানুষ হিসেবে তার কাছে ছোট বড় কোনো ভেদাভেদ নেই। আর এ কারণেই বড়, ছোট, ধনী দরিদ্র সবাই তাকে তাদের প্রতিনিধি হিসেবে পেতে চায়। তার রাজনৈতিক কর্মকান্ড এবং দলের জন্য তার ত্যাগের কারণে এবার এ উপজেলা থেকে চেয়ারম্যান হিসেবে পেতে চায় এই ইউনিয়ন তথা মাদারগঞ্জ বাসীর জনগণ।

অপরদিকে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পরবর্তী সময়ে স্থানীয় রাজনৈতিক মহল, শুভাকাঙ্খীরা রায়হান রহমতুল্যাহ রিমু কে নিয়ে নানা রকম ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে তাকে উপজেলা চেয়ারম্যান হিসেবে দেখতে চায়।

এ ব্যাপারে আওয়ামী লীগের একাধিক শীর্ষ নেতা জানান, দলের জন্য নিবেদিত কর্মী যারা, দলের দুর্দিনে নেতা-কর্মীদের পাশে দাঁড়িয়েছে এবং সংগঠনকে শক্তিশালী করার কাজে অর্থ ও শ্রম ব্যয় করেছে তাদেকে এবার মূল্যায়ন করা হবে। দলের সভাপতি শেখ হাসিনা কোন কর্মীকে ভুলে যান না। তার সঠিক মূল্যায়ন তিনি করেন।






Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked as *

*